Menu

যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটিতে আলোচনায় – রাজীব

nobanner

রাজীব কুমার ঘোষ,পিতা,মৃত রতীষ ঘোষ, মাতা পারুল ঘোষ, পোঃকটিয়াদী সদর ,থানা কটিয়াদী ,জেলা “কিশোরগঞ্জ, বিভাগ, ঢাকা।

পারিবারিক ভাবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির সমর্থিত, জাতীয়তাবাদের আদর্শে বিশ্বাসী দলের নিবেদিত কর্মী।

তিনি ১৯৯৮ সদস্য কটিয়াদী উপজেলা ছাত্রদল এর সদস্য পদে দায়িত্ব পালন করে।

২০০১ সালে দলের সাংগঠনিক দক্ষতায় পৌর ছাত্রদল এর সহ-সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করে।

তার পরে বেশ কিছু দিন জেলা ছাত্রদলের সক্রিয় কর্মী হিসাবে রাজনীতি করেন।

তার পরে ছাত্ররাজনীতি শেষ করে পৌর যুবদলের সহ সভাপতি পদ গ্রহন করে যুবদলের রাজনীতি শুরু করে।

তিনি যখন দেশের কোন গনতন্ত্র নেই মানুষের কথা বলার সুযোগ নেই, বিএনপির কোন কর্মসূচি পালন করতে পারে না।

তখন তিনি অনলাইনে বিএনপি এর প্রচার প্রচরণায় নিজেকে আলোচনায় আনে।

তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী প্রচার দল এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য।

তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী প্রচারদলের সাবেক আন্তর্জাতিক সম্পাদক, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী ন্যাশনালিষট অনলাইন ফোরাম সহ সভাপতি, তার পরে তার গ্রহণ যোগ্যতায় এবং সকলের চাওয়াতে তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী প্রচারদলের নির্বাহী কমিটির সাধারণ সম্পাদক পদ লাভ করে।

এবং বিএনপির অনলাইন শক্তির অন্যতম বাহক হিসাবে কাজ করে।

তিনি এক প্রশ্নে বলেন রাজনৈতিক কর্ম,শহীদ জিয়ার আদর্শ কে বুকে ধারন করে ১৯৯৮ সাল থেকে রাজনৈতিতে পথ হাটা শুরু করি।

দলের জন্য কাজ করা কে সবসময় গুরুত্ব দিয়ে আসছি।

সাংগাঠনিক কাজে নিজেকে নিযুক্ত করি ২০১৪ সালের নির্বাচনের পরে সরকারের রোশনলে পরে দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়।

বিগত বছরগুলোতে দেশে এবং বিদেশে,আনদোলনের সংগ্রামে অগ্রনী ভুমিকা পালন করি,দলের বিভিন্ন আচার অনুষ্ঠানে ব্যানার পোস্টারে অর্থ সমস্যা সমাধান করি,দলের জন্য অর্থ ব্যয় করে নেতা কর্মিদের দেখাশুনার দায়িত্ব নেয়।

সামাজিক কাজে মাধ্যমে নিজে কে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করার চেষ্টা করি, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী প্রচার দলের মাধ্যমে ২০ জেলাতে কমিটি প্রদান করি, তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আগ্রহনী ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে, রাজপথে আনন্দোলন করে যাচ্ছে, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য আনদোলনের করে যাচ্ছি,সর্বশেষ জাতীয় একাদশ সাংসদ নির্বাচনে কিশোরগঞ্জ ২ আসনের নমিনেশন পেপার জমা দেই। আমি দলের সিদ্ধান্ত মেনে পরে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করি।

আমার এলাকার নেতা কর্মী দের মামলা হামালার সর্বোচ্চ খোজ নেওয়ার চেষ্টা করি।

আমি যুবদলের রাজনীতির সাথে অনেক আগে থেকে সরাসরি যুক্ত।

সেক্ষত্রে আমি যুবদলের দায়িত্ব আশা করতেই পারি।

আমি বিশ্বাস করি আমার নেতা জনাব তারেক রহমান আমাকে বিবেচনায় রাখবেন।

আমাকে দায়িত্ব দিলে আমি গোটা যুবসমাজ কে ঐক্যবদ্ধ করতে চেষ্টা করবো।

এবং দলের প্রতি সর্বোচ্চ দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে চেষ্টা করবো।

আমি দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনের সৈনিক হতে চাই।

দলের ও আমার নির্বাচনী এলাকায় কাজ করতে চাই।

শেয়ার করুন:

এই নিউজটি আপনার বাংলাদেশী বন্ধুদের মোবাইলে এসএমএস এ শেয়ার করুন।

AdsMic