Menu

১৬ বছর পর মিরপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন, শেষ মূহুর্তে জমে উঠেছে প্রচারণা

আল-হেলাল,সুনামগঞ্জ থেকে: অবশেষে সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে দীর্ঘ ১৬ বছর পর সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের মিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন আগামী ১৪ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। শেষ মূহুর্তের প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন নির্বাচনে অংশ নেওয়া মোট ৬ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী ও তাঁদের সমর্থকরা।

ইউনিয়নের চায়ের দোকান থেকে শুরু করে সর্বত্রই এখন নির্বাচনী আলাপচারিতা। নির্বাচনী প্রচারণায় উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে পুরো ইউনিয়নে। নির্বাচনকে ঘিরে পুরো ইউনিয়নে চলছে উসবের আমেজ। প্রার্থীরা নাওয়া খাওয়া ভুলে ঘুরছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। অধিকাংশ ভোটাররা জানান, এই মুহুর্তে প্রচারণায় আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী (আনারস প্রতীক) মাহববুল হক শেরীন এগিয়ে রয়েছেন। তবে শেষ পর্যন্ত নৌকা প্রতীকে আওয়ামীলীগ মনোনিত প্রার্থী আলহাজ্ব আব্দুল কাদির ও আনারস প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহবুবুল হক শেরীন এ দুই প্রার্থীর মধ্যেই মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে।

জানা যায়, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার মিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের সীমানা সংক্রান্ত জটিলতা নিয়ে মামলা থাকায় ১৬ বছর পর এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। ৬ জন চেয়ারম্যান প্রার্থীর মাইকিং, প্রচার-প্রচারণা ও গণসংযোগে মুখরিত ইউনিয়নের প্রতিটি এলাকা। ব্যানার ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে ইউনিয়নের সড়কসহ বিভিন্ন হাট-বাজার।

নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থীরা হলেন, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মিরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির (নৌকা) প্রতীক, জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী আব্বাছ মিয়া (লাঙ্গল) প্রতীক, স্বতন্ত্র প্রার্থী জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ মাহবুবুল হক শেরীন (আনারস) প্রতীক, যুক্তরাজ্য প্রবাসী সাহাব আলী (টেলিফোন) প্রতীক, হাফিজ শওকত আলী (চশমা) প্রতীক, আতাউর রহমান (মোটর সাইকেল) প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে লড়াই করবেন।

১৪ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনকে ঘিরে চেয়ারম্যান পদে উল্লেখিত ৬ জন প্রার্থী নির্বাচনী মাঠে বিজয়ের লক্ষ্যে হাট-বাজার সহ গ্রামাঞ্চলে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। ইউনিয়নবাসীর সেবা করার জন্য সর্বস্তরের জনসাধারণের কাছে দোয়া ও আশীর্বাদ চেয়ে ভোটারদের সাথে কুশল-বিনিময় করছেন চেয়ারম্যান প্রার্থীরা। তবে ভোটাররা বলেছেন, ১৬ বছর পর আমাদের এলাকায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আমরা সত্যি খুবই আনন্দিত। আমরা যোগ্য দেখে ভোট দেব। সুষম উন্নয়ন যাকে দিয়ে হবে,তাকেই দেব ভোট। নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ দেখতে চান ভোটাররা।

কয়েকজন ভোটাররা বলেন, নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী আওয়ামী লীগের আব্দুল কাদির (নৌকা),স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহবুবুল হক শেরীন (আনারস) ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী আব্বাছ মিয়া (লাঙ্গল) এই ৩ প্রার্থীকে নিয়েই ভোটাররা ভাবছেন। নির্বাচিত হলে ইউনিয়নের উন্নয়ন, ইউনিয়ন তথ্যপ্রযুক্তির সকল সুযোগ সুবিধা এবং ইউনিয়নে যাতে সাধারণ মানুষ ন্যায় বিচার পায় সেই সব বিষয় সমাধানসহ নানা উন্নয়নের আশ্বাস দিয়েছেন প্রার্থীরা। এই ৩ প্রার্থীর মধ্যে একজন যোগ্য প্রার্থীকেই বাছাই করবেন ভোটাররা।

হালনাগাদ তালিকা অনুযায়ী মিরপুর ইউনিয়নে এবার মিরপুর ইউনিয়নের মোট ভোটার সংখ্যা ১৪ হাজার ৩শ ৯১। পুরুষ ভোটার ৭ হাজার ৩শ ৬জন ও মহিলা ভোটার ৭ হাজার ৮৫জন। ১০টি ভোট কেন্দ্রে ৩৩টি বুথে ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো.মুজিবুর রহমান জানালেন, ১৬ বছর পর জন্নাথপুর উপজেলার মিরপুর ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত নির্বাচনী পরিবেশ খুবই শান্ত সুষ্ঠু রয়েছে।

The post ১৬ বছর পর মিরপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন, শেষ মূহুর্তে জমে উঠেছে প্রচারণা appeared first on DAILYSYLHET.COM | SYLHET NEWS | BANGLA NEWS.

সূত্র :: ডেইলি সিলেট

শেয়ার করুন:

এই নিউজটি আপনার বাংলাদেশী বন্ধুদের মোবাইলে এসএমএস এ শেয়ার করুন।

AdsMic